৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর-উত্তরের ছাত্রসমাবেশ ও বর্ণাঢ্য র‌্যালি

0
235
৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর-উত্তরের ছাত্রসমাবেশ ও বর্ণাঢ্য র‌্যালি
৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর-উত্তরের ছাত্রসমাবেশ ও বর্ণাঢ্য র‌্যালি

নগরীর চেরাগী পাহাড় চত্বরে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার

৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর-উত্তরের

ছাত্রসমাবেশ ও বর্ণাঢ্য র‌্যালি

 

সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশনকে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে হবে  ———-স উ ম আবদুস সামাদ

আদনান হত্যা অবক্ষয়পীড়িত ছাত্ররাজনীতির কূফল  ——–জি.এম শাহাদত মানিক

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব স.উ.ম আবদুস সামাদ বলেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড সৃষ্টি করতে নির্বাচন কমিশনকে ভূমিকা রাখতে হবে। সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদে কমিশনের স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালনের বিধান রয়েছে। কাজেই স্বাধীন সংস্থা হিসেবে নির্বাচন কমিশন সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে যে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে।

প্রশ্ন হচ্ছে, নির্বাচন কমিশন তার এই ক্ষমতা এবং সক্ষমতা ব্যবহারে আন্তরিক হবে কিনা। ইতোমধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনার যেসব বক্তব্য দিয়েছেন, তা মোটেও আশাব্যঞ্জক নয়। অনেকেরই মনে হয়েছে, তার কথাবার্তার মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের অদৃশ্য সুতার টান রয়েছে। নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতায় ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের মত কোন নির্বাচন হলে এবার দেশের অবস্থা মারাত্মক আকার ধারণ করবে। তিনি বলেন, বর্তমানে চাল, ডাল, তৈলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি এবং গ্যাস-বিদ্যুৎ এর অব্যাহত দামবৃদ্ধিতে জনগণ অতিষ্ঠ। অবিলম্বে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নিতে হবে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা দেশে ছাত্ররাজনীতির অনন্য আদর্শিক মডেল। সূচনা থেকে বর্তমান পর্যন্ত এ সংগঠন শিক্ষাব্যবস্থার সংস্কার ও ছাত্রদের অধিকার আদায়ে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার ৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর উত্তর শাখার উদ্যোগে আজ ১৯ জানুয়ারী’ শুক্রবার বিকালে চট্টগ্রাম চেরাগী পাহাড় মোড়ে আয়োজিত র‌্যালিপূর্ব ছাত্রসমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব স উ ম আবদুস সামাদ। সমাবেশ প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক রাশেদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে নগর ছাত্রসেনার সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মাছুমুর রশীদ কাদেরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ছাত্রসেনা মহানগর উত্তর সাধারণ সম্পাদক মো. মারুফ রেযা। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি সচিব আবদুর রহিম। প্রধান বক্তা ছিলেন ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি জি এম শাহাদত হোছাইন মানিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইসলামী ফ্রন্ট নগর উত্তর সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ফজলুল করিম তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম শফি, নগর উত্তর যুবসেনার সভাপতি জসিম উদ্দীন, সেক্রেটারি হাবিবুল মোস্তফা সিদ্দিকী, মোফাচ্ছের হোসেন টিপু, ছাত্রসেনা উত্তর জেলার সভাপতি হোসেইন মুহাম্মদ এরশাদ, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, ছাত্রসেনা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মুহাম্মদ রিয়াজ হোসেন, মো. মিজান। বিশেষ বক্তা ছিলেন ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম।

প্রধান বক্তা জি.এম শাহাদত হোছাইন মানিক বলেন, বর্তমানে ছাত্ররাজনীতির নামে সন্ত্রাস ও হত্যার রাজনীতি চলছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দিন দুপুরে ছাত্র হত্যা করা হচ্ছে। সম্প্রতি চট্টগ্রামের ৯ম শ্রেণির ছাত্র আদনান হত্যা এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। অতীতে ছাত্ররাজনীতি ছিল প্রকৃত অর্থে ছাত্রআন্দোলন। ছাত্র সংগঠনগুলো আন্দোলন করেছে শিক্ষার অধিকার ও পরিবেশের জন্য, আবার জাতির প্রয়োজনেও। তখন ছাত্র সংগঠনগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক দলের সম্পর্ক ছিল আদর্শ ও কর্মসূচিভিত্তিক। একে অন্যের সহযোগী, কোনো বিবেচনায় ছাত্র সংগঠন রাজনৈতিক দলের আজ্ঞাবহ ছিল না। তখন ছাত্র সংগঠনগুলোই রাজনৈতিক নেতৃত্বের আগে আগে হেঁটেছে। ৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে প্রতিটি আন্দোলনে ভূমিকা রেখেছে। তাই এখনও দেশের সমৃদ্ধি অর্জন এবং একটি আদর্শ জাতি উপহার দিতে শিক্ষাঙ্গনে আদর্শ পরিবেশ তৈরিতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। এতে একদিকে যেমন শিক্ষাঙ্গনে স্বস্তি ফিরে আসবে, তেমনি সবার সহযোগিতায় গড়ে উঠবে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। এজন্য প্রয়োজন সুষ্ঠু ও সুন্দর ছাত্র সংসদ নির্বাচন। তিনি অবিলম্বে দেশের প্রতিটি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রসংসদ নির্বাচন দেয়ার দাবি জানান। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার ইতিহাস সংগ্রাম ও গৌরব্যের ইতিহাস। দেশে প্রচলিত হিংসাত্মক-ধ্বংসাত্মক রাজনীতির বিপরীতে ছাত্রসেনা আদর্শিক-শিক্ষাবান্ধব রাজনীতির চর্চা করছে।

ছাত্রসেনার সপ্ত মূলনীতি ও পঞ্চ কর্মসূচি ছাত্রসমাজকে আলোর পথ দেখাচ্ছে। তিনি সর্বস্তরের শান্তিপ্রিয় ছাত্রদেরকে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। সমাবেশে মহানগর উত্তর ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাসুম, মুহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মুহাম্মদ রফিক, মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, মুহাম্মদ শিহাব উদ্দিন, শায়ের মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন, মুহাম্মদ এরশাদ, সাব্বির হোসেন, মুহাম্মদ আদনান তাহসিন, মুহাম্মদ আরাফাত, মুহাম্মদ শাহাদাত, মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন, মুহাম্মদ আবু নাছের, মুহাম্মদ আবদুল করিম।

ছাত্রসমাবেশ শেষে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আন্দরকিল্লা হয়ে লালদীঘি মোড়ে সমাপ্ত হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here