আজ বনার্ঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ছাত্রসেনার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

0
282
ছাত্রসেনার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত
ছাত্রসেনার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

ছাত্রসেনার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব স.উ.ম আবদুস সামাদ বলেছেন, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড সৃষ্টি করতে নির্বাচন কমিশনকে ভূমিকা রাখতে হবে।

সংবিধানের ১১৮ অনুচ্ছেদে কমিশনের স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালনের বিধান রয়েছে। কাজেই স্বাধীন সংস্থা হিসেবে নির্বাচন কমিশন সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে যে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে।

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার ৩৮ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মহানগর উত্তর শাখার উদ্যোগে ১৯ জানুয়ারী শুক্রবার বিকালে চট্টগ্রাম চেরাগী পাহাড় মোড়ে আয়োজিত র‌্যালিপূর্ব ছাত্রসমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব স উ ম আবদুস সামাদ। সমাবেশ প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক রাশেদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে নগর ছাত্রসেনার সহ-সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মাছুমুর রশীদ কাদেরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ছাত্রসেনা মহানগর উত্তর সাধারণ সম্পাদক মো. মারুফ রেযা। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ইসলামী ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি সচিব আবদুর রহিম। প্রধান বক্তা ছিলেন ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি জি এম শাহাদত হোছাইন মানিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন, ইসলামী ফ্রন্ট নগর উত্তর সহ-সভাপতি মুহাম্মদ ফজলুল করিম তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম শফি, নগর উত্তর যুবসেনার সভাপতি জসিম উদ্দীন, সেক্রেটারি হাবিবুল মোস্তফা সিদ্দিকী, মোফাচ্ছের হোসেন টিপু, ছাত্রসেনা উত্তর জেলার সভাপতি হোসেইন মুহাম্মদ এরশাদ, মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, ছাত্রসেনা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মুহাম্মদ রিয়াজ হোসেন, মো. মিজান। বিশেষ বক্তা ছিলেন ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম। প্রধান বক্তা জি.এম শাহাদত হোছাইন মানিক বলেন, বর্তমানে ছাত্ররাজনীতির নামে সন্ত্রাস ও হত্যার রাজনীতি চলছে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দিন দুপুরে ছাত্র হত্যা করা হচ্ছে। স¤প্রতি চট্টগ্রামের ৯ম শ্রেণির ছাত্র আদনান হত্যা এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। অতীতে ছাত্ররাজনীতি ছিল প্রকৃত অর্থে ছাত্রআন্দোলন। ছাত্র সংগঠনগুলো আন্দোলন করেছে শিক্ষার অধিকার ও পরিবেশের জন্য, আবার জাতির প্রয়োজনেও। তখন ছাত্র সংগঠনগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক দলের সম্পর্ক ছিল আদর্শ ও কর্মসূচিভিত্তিক। সমাবেশে মহানগর উত্তর ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাসুম, মুহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মুহাম্মদ রফিক, মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, মুহাম্মদ শিহাব উদ্দিন, শায়ের মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন, মুহাম্মদ এরশাদ, সাব্বির হোসেন, মুহাম্মদ আদনান তাহসিন, মুহাম্মদ আরাফাত, মুহাম্মদ শাহাদাত, মুহাম্মদ মঈনুদ্দিন, মুহাম্মদ আবু নাছের, মুহাম্মদ আবদুল করিম প্রমুখ। সবশেষে একটি র‌্যালি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আন্দরকিল্লা হয়ে লালদীঘি মোড়ে শেষ হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here